ঢাকা, রবিবার, ২৮ মে ২০১৭, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪

সুইমিংপুলে দুই তরুনীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা, অত:পর সুটে গিয়ে ... দেখুন

বনানীতে ধর্ষণ মামলার বাদীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের কথা স্বীকার করে গতকাল বৃহস্পতিবার আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন শাফাত আহমেদ। তবে তাঁর বর্ণনা আর এজাহারে উল্লেখিত প্রেক্ষাপটের মাঝে কিছু ফারাক রয়েছে জানিয়ে পুলিশের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা বলেন, শাফাতের জবানবন্দিতে এজাহারে উল্লিখিত অভিযোগের সত্যতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

এই মামলার আরেক আসামি সাদমান সাকিফও গতকাল ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তবে তিনি ধর্ষণের অভিযোগ স্বীকার করেননি বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের অপরাধ ও তথ্য বিভাগের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার মিরাশ উদ্দিন বলেন, দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার আসামি শাফাত ও সাদমান স্বীকারোক্তি দেওয়ার পর দুজনকে আদালতের নির্দেশে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাঁদের জামিনের জন্য আবেদন করা হয়েছে, যার শুনানি হবে আগামী রোববার।

শাফাত ও সাদমানকে গতকাল সকাল ৯টার দিকে আদালতে হাজির করা হয়। মহানগর হাকিম আহসান হাবিব তাঁর খাসকামরায় আসামি শাফাতের এবং মহানগর হাকিম সাব্বির ইয়াছির আহসান চৌধুরী আসামি সাদমানের জবানবন্দি গ্রহণ করেন।

আদালতসংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জবানবন্দিতে শাফাত বলেছেন, ঘটনার (২৮ মার্চ) ১৫ দিন আগে রাজধানীর পিকাসো রেস্তোরাঁয় মামলার বাদীর সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। পরিচয়ের নেপথ্যে ছিলেন সাদমান সাকিফ, পিকাসো রেস্তোরাঁটির একজন মালিক সাদমানের বাবা মোহাম্মদ হোসেন (জনি)। সেখান থেকেই তাঁদের আলাপ শুরু হয়। ২৮ মার্চ শাফাতের জন্মদিনে বন্ধুরা পার্টির আয়োজন করেন এবং হোটেল বুকিং দেন। ওই দিন সন্ধ্যা সাতটার দিকে তাঁরা হোটেল রেইনট্রিতে যান। পার্টিতে ওই ছাত্রীদের (মামলার বাদী ও তাঁর বান্ধবী) আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তাঁরা সবাই মিলে সুইমিংপুলে এক ঘণ্টার মতো সাঁতার কাটেন। সেখানে একে অপরের সঙ্গে তাঁদের ঘনিষ্ঠতা হয়। সুইমিংপুল থেকে উঠে এসে জন্মদিনের কেক কাটেন, এরপর আগে থেকে বুকিং দেওয়া কক্ষে (স্যুইট) যান তাঁরা।

শাফাতের ভাষ্য, স্যুইটের দুটি কক্ষের একটিতে শাফাত একজনের (বাদী) সঙ্গে এবং আরেকটিতে নাঈম আশরাফ (প্রকৃত নাম আবদুল হালিম) অপর ছাত্রীর (বাদীর বান্ধবী) সঙ্গে ছিলেন। শাফাত ওই ছাত্রীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হলে একপর্যায়ে তিনি (ছাত্রী) কান্নাকাটি শুরু করেন। তখন বুঝিয়ে শান্ত করা হয়, তাঁদের (দুই ছাত্রী) জন্মনিরোধক ওষুধ খাওয়ান। সকালে তাঁরা সবাই হোটেল ছেড়ে চলে যান।

Posted by Newsi24

এ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

দেশ এর সর্বশেষ খবর



রে